Tips

রমজানের শুভেচ্ছা বার্তা, মেসেজ,ফেসবুক স্ট্যাটাস, উক্তি ও পিকচার

ramadan status bangla: রমজান মুবারক। আসুন সবাই মিলে পবিত্র মাহে রমজানের পবিত্রতা রক্ষা করি ও আল্লাহর কাছে নিজেদেরকে সমর্পন করি । সবাইকে জানাই পবিত্র রমজান মাসের শুভেচ্ছা । পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে আমরা আপনাদের জন্য নিয়ে এলাম রমজানের শুভেচ্ছা বার্তা, রমজানের মেসেজ, রমজানের ফেসবুক স্ট্যাটাস, রমজানের উক্তি ও পিকচার। যা আমরা আপনাদের জন্য আমাদের ওয়েবসাইটে পাবলিশ করার উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। আপনাদের সবার প্রতি অনুরোধ রইল যাতে আপনারা আমাদের পোষ্টগুলো শেয়ারের মাধ্যমে সকলের কাছে ছড়িয়ে দিতে আমাদের সহযোগিতা করবেন।

রমজানের শুভেচ্ছা বার্তা

রমজানের শুভেচ্ছা বানীঃ পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে আমরা নিয়ে এলাম মাহে রমজানের শুভেচ্ছা বার্তা। এছাড়াও আরও পাবেন রমজানের মেসেজ, রমজানের ফেসবুক স্ট্যাটাস, রমজানের উক্তি এবং রমজানের পিকচার।

১) রমজান মুসলমানদের উপহার দেওয়া হয়েছে যাতে তারা ভক্তি অর্জন করে, তাদের অন্তরকে পরিশুদ্ধ করে এবং সর্বশক্তিমান আল্লাহর কাছ থেকে প্রচুর পুরস্কার লাভ করে এবং আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের চেষ্টা করে। রমজান মুবারক।

২) আপনাদের জন্য আল্লাহর পক্ষ থেকে  নেক দোয়া কামনা করছি এবং সকলের জন্য একটি বরকতময় রমজানের প্রার্থনা করছি। রমজান সকলের জন্য বয়ে আনুক পবিত্রতা। রমজান মুবারক।

৩) শীঘ্রই রমজান আসছে। রমজান আমাদের বদ অভ্যাস ভাঙার প্রশিক্ষণ দেয়। কিভাবে নিজেদের গুনাহ হতে দূরে রাখবো সেই শিক্ষা দেয়। তাই, এই রমজানে আসুন আমাদের সকল বদ অভ্যাস পরিত্যাগ করি ও পবিত্রতা অর্জন করি। রমাজান কারীম।

৪) রমজান আল্লাহর মাস। যার শুরু দশদিনের রহমত, যার মাঝামাঝি দশদিনে মাগফিরাত, যার শেষ দশদিনে জাহান্নাম থেকে মুক্তি লাভ করতে সাহায্য করে। সকলকে রমজানের শুভেচ্ছা।

৫) রমজান শীঘ্রই আমাদের মাঝে আসছে। নিজেকে গড়ে তুলুন, নিজেকে আকৃতি দিন, নিজেকে পরিবর্তন করুন এবং একজন অনুশীলনকারী মুসলমান হওয়ার জন্য আপনার কাজে ইসলামের সমস্ত শিক্ষা প্রয়োগ করুন। রমজান মুবারক।

৬) রমজানের আগে প্রত্যেককে ক্ষমা করার চেষ্টা করুন যারা আপনার সাথে কিছু ভুল করেছে যাতে আপনি শুদ্ধ হৃদয় এবং ধন্য আত্মার সাথে রমজান মাস উপভোগ করার দিকে মনোনিবেশ করতে পারেন। সবাইকে রমজানের শুভেচ্ছা।

৭) এই রমজান আপনার ইমানকে শুদ্ধ ও পুনর্নির্মাণের একটি দুর্দান্ত সুযোগ। এই আসন্ন পবিত্র রমজানে আমাদের ইমানকে সতেজ করতে প্রস্তুত হোন। একটি পবিত্র মাসের শুভেচ্ছা।

৮) আল্লাহ আপনার জন্য অনুগ্রহ এবং জ্ঞান পাঠান যা আপনার জীবনকে এমন একটি জীবনে পরিবর্তন করে যা তাঁর ইচ্ছা অনুযায়ী ব্যয় করা হয়! একটি আশীর্বাদপূর্ণ এবং শান্তিপূর্ণ রমজান মাসের শুভেচ্ছা।

৯) রমজান হলো বৃষ্টির মতো। এটা ভালো কাজের বীজকে পুষ্ট করে। আসুন এই আসন্ন রমজানে আমাদের আত্মাকে পুষ্ট করি! সাথে এই মাসটির পবিত্রতাকে আঁকড়ে ধরি। রমজান মুবারক।

১০) এই রমজানকে আমাদের জীবন পরিবর্তনের টার্নিং পয়েন্ট হিসেবে ব্যবহার করুন। আসুন এই বিশ্বের সস্তা কৌশল থেকে বিরত থাকি এবং ইমানের বিশুদ্ধতায় নিজেকে জড়িত করি। পবিত্র রমজান মাসের শুভেচ্ছা।

১১) “রাসূল (সাঃ) বলেছেন যখন রমজান মাস শুরু হয় তখন বেহেশতের দরজাগুলো খুলে দেওয়া হয় এবং জাহান্নামের দরজাগুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়। আর শয়তানকে শৃঙ্খলিত করা হয়। (সহীহ আল-বুখারী)

আরো পড়তে পারেন-

১২) হে আল্লাহ! এই আসন্ন রমজানকে এমন একটি সময় করুন যা আমাদের জীবনকে এমনভাবে পরিবর্তন করতে পারে যাতে আমরা এই মাস এবং চিরকালের জন্য আপনার দিকে ফিরে যাই। আমীন।

১৩) রমজান ধর্মীয় অনুশীলনে সাময়িক বৃদ্ধি নয়, এটি প্রতিদিন আপনি যা করতে সক্ষম তার একটি আভাস। সুতরাং দিনটিকে সেভাবে উদযাপন করুন! যেভাবে করলে আল্লাহ খুশি হবেন।
রমজান মুবারক!

১৪) আমাদের হৃদয় ও আত্মাকে পবিত্র করার একটি সময়, সমস্ত পাপ থেকে মুক্ত হওয়ার একটি সময়, আল্লাহর সাথে গভীর সংযোগ স্থাপনের একটি সময়, এবং সেই সময় খুব শীঘ্রই আসছে! আপনি কি রমজানের জন্য প্রস্তুত?

১৫) শীঘ্রই রমজান আসছে! একজন ভালো মানুষ হোন! এমন ব্যক্তির মতো হবেন না, যে নিজেকে খাবার থেকে দূরে রাখার জন্য উপবাস করে। তবে অন্যায় কথাবার্তা, পাপ কাজ, গীবত এবং অন্যকে আঘাত করা থেকে নিজেকে দূরে রাখার জন্য রোজা রাখুন। আল্লাহ আমাদের সকলকে রমজানের মহত্ত্ব বুঝার তাওফিক দিন। আমীন।

রমজানের মেসেজ/ এসএমএস ২০২২

ramadan sms: পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে আমরা নিয়ে এলাম মাহে রমজানের মেসেজ/এসএমএস। এছাড়াও আরও পাবেন রমজানের শুভেচ্ছা বার্তা, রমজানের ফেসবুক স্ট্যাটাস, রমজানের উক্তি এবং রমজানের পিকচার।

১) এই আসন্ন রমজানে! আসুন আমাদের রুটিন পরিবর্তন করি। এমন ব্যক্তি হন যে নিজে কম খায় এবং অন্যকে খাওয়ায়। ঘুমের মধ্যে কম সময় ব্যয় করুন এবং বেশি বেশি সোয়াব খোঁজার চেষ্টা করুন। তাহলেই আল্লাহ আমাদের সকলের উপর খুশি হবেন৷ রমাজান কারীম।

২) মুহাম্মাদ সাঃ ফরমান “রোজা এমন এক জিনিস যেটি মানুষকে জাহান্নামের আগুন থেকে রক্ষা করে এবং গুনাহ হতে মানুষকে দূরে সরিয়ে রাখে। (সুনান ইবনে মাজাহ। হাদীস -১৬৩৯)

৩) আসুন আমরা আন্তরিকভাবে প্রার্থনা এবং রোজা পালনের মাধ্যমে আল্লাহকে খুশি করার চেষ্টা করি এবং তাঁর কাছে মুনাজাত পৌঁছানোর চেষ্টা করি যাতে তিনি আমাদের হৃদয় ও আত্মাকে ঈমান ও তাকওয়ার আলোয় আলোকিত করেন। রমজান মুবারক!

৪) আসুন আমরা প্রতিজ্ঞা করি এই আসন্ন রমজানকে আমাদের জীবনের শেষ রমজান হিসেবে পরিণত করার। আসুন এই পৃথিবীর প্রতারণা থেকে বিরতি নিয়ে আমাদের হৃদয় ও আত্মাকে ইমানের মাধুর্যের স্বাদ নিতে প্রস্তুত করি। রমজানের শুভেচ্ছা।

৫) রমজানের প্রতি রাতে আল্লাহ মানুষকে জাহান্নামের আগুন থেকে বাঁচানোর জন্য বেছে নেন। তাই আসুন, আসন্ন রমজানে আমাদের হৃদয় ও দেহকে শুধুমাত্র রমজানের জন্য নয়, চিরকালের জন্য এবং জাহান্নাম থেকে মুক্তির নিশ্চয়তা দেওয়ার মাধ্যমে আল্লাহকে খুশি করার এই সুযোগটি কাজে লাগাই। রমজান কারীম।

৬) রমজান আমাদের সময়সূচী পরিবর্তন করতে আসে না। এটা আমাদের হৃদয় পরিবর্তন করতে আসে। আসন্ন রমজানে নিয়মিত রোজা রাখার মাধ্যমে আপনার অন্তরকে সকল প্রকার পাপ থেকে মুক্ত করুন এবং হৃদয় ও আত্মার পবিত্রতা অর্জন করুন। আল্লাহ সকলকে বুঝার তাওফিক দিন। আমীন।

৭) দ্রুত এগিয়ে আসছে রমজান! সঠিকভাবে রোজা রাখতে এবং এর সওয়াব অর্জন করতে গুনাহের মত ভুলগুলি এড়াতে ভুলবেন না। রমজানের পবিত্রতা রক্ষার্থে সকলের উচিত দায়িত্বশীল হওয়া। যথাযথ ইবাদাত বন্দেগি করা।

৮) কারো উপর রাগ করবেন না। সারাদিন ঘুমিয়ে রোজা রাখবেন না, নামাজ ছাড়া রোজা রাখা মানে পেট খালি রাখা ছাড়া আর কিছুই নয়। খারাপ ভাষার ব্যবহার এড়িয়ে চলুন। যথাসাধ্য দানসদকা করুন। এতে আল্লাহ খুশি হবেন।

৯) “যে ব্যক্তি অন্য রোজাদারকে ইফতার করাবে, সে রোজাদারের সমান সওয়াব পাবে, রোজাদারের সওয়াব থেকে কোন ঘাটতি হবে না।” ( সূনান নিসায়ী ও তিরমিযী) চলুন, আমরা নিজেরা ইফতার করি এবং অন্যকে ইফতারি করতে সহযোগিতা করি।

১০) সফলতার চাবিকাঠি কুরআনে প্রতিফলিত হয়েছে। রমজানের দিনগুলিতে আমরা একসাথে কুরআন পাঠ করার সাথে সাথে আমরা বরকত এবং নির্দেশনা পেতে পারি। কুরআন আমাদের পূর্ণাঙ্গ মুমিন হতে সাহায্য করবে ইনশাআল্লাহ।

১১) হাদীসে আছে, রজব হলো বীজ বপনের মাস। শাবান হলো ফসলে সেচের মাস। আর রমজান হলো ফসল কাটার মাস। এর দ্বারা রজব, শাবান এবং রমজানে ইবাদাতের গুরুত্ব বুঝায়। সুতরাং, সকলের উচিত এই মাসগুলোর যথাযথ সম্মান রক্ষা করা।

১২) যে ব্যক্তি আল্লাহর জন্য নিজের খানাপিনা, গুনাহ এবং সকল মন্দ কাজ থেকে নিজেকে দূরে রাখবে রোজ কিয়ামতে আল্লাহ তাঁর সোয়াবকে দ্বিগুণ বাড়িয়ে দেবেন। [সহীহ আল বুখারী 1894]

অতএব, সকলের উচিত একমাত্র আল্লাহকে সন্তুষ্ট করতে নিজেকে গুনাহ এবং রমজানে পানাহার থেকে দূরে রাখা। আমীন।

১৩) সেই ব্যক্তি সবচেয়ে ভাগ্যবান যার চারপাশের লোকদের প্রশংসা করার ক্ষমতা আছে কিন্তু তাদের থেকে ঈর্ষান্বিত হওয়ার ক্ষমতা নেই। সকলকে আনন্দময় রমজানের শুভেচ্ছা!

১৪) পবিত্র রমজান সম্পর্কে আল্লাহ পাক কুরআনে বলেছেন, “হে মুমিনগণ! তোমাদের উপর রোজা ফরজ করা হয়েছে যেমন অতীতে ফরজ করা হয়েছিল তোমাদের পূর্ববর্তীদের উপর। যাতে তোমরা আত্মসংযম শিখতে পারো।(কুরআন ২:১৮৩)

১৫) পবিত্র কুরআন, অধ্যায় ২, আয়াত ১৮৩-১৮৭ বলা হয়েছে, “হে ঈমানদারগণ, তোমাদের উপর রোজা ফরজ করা হয়েছে যেভাবে ফরজ করা হয়েছিল তোমাদের পূর্ববর্তীদের উপর, যাতে তোমরা পরহেজগার হতে পার।অতএব, সকলের উচিত পবিত্রতার সাথে সাওম পালন করা এবং নিজেদের পরহেজগার হিসেবে তৈরি করা।

রমজানের ফেসবুক স্ট্যাটাস

পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে আমরা নিয়ে এলাম মাহে রমজানের ফেসবুক স্ট্যাটাস। এছাড়াও আরও পাবেন রমজানের শুভেচ্ছা বার্তা, রমজানের মেসেজ, রমজানের উক্তি এবং রমজানের পিকচার।

১) রমজানের চাঁদ বয়ে আনুক সকলের জীবনে পবিত্রতা। হে আল্লাহ! আমাদের সকলকে আপনার পথে পরিচালিত করুন এবং এর নরম রশ্মি আমাদের জীবনে আলোকিত করুন প্রেম এবং সম্প্রীতি দিয়ে। সকলকে রমজান মুবারক।

২) রোজা ! আমাদের আত্মাকে সংযত করার এবং আমাদের দেহকে প্রশিক্ষণ দেওয়ার সর্বোত্তম উপায়! রোজা ! আমাদের স্বার্থপরতা নিয়ন্ত্রণ করতে শেখায়! আমাদের অহংকার থেকে বের হয়ে বিনয় হতে শেখায়! এবং নিজেদেরকে পবিত্র হতে শেখায়। আমাদের চারপাশের মানুষদের কাছাকাছি হচ্ছে! প্রকৃতির কাছাকাছি! পরিবেশের কাছাকাছি হচ্ছে!এবং আমাদের অন্তরের মিলন!

এ সবই রোজা সম্পর্কে! রমজান তার সমস্ত রহমতের সাথে পৌঁছেছে তাই আমরা আমাদের নিজেদের এবং আমাদের প্রিয়জনদের জন্য সুস্বাস্থ্য, সম্পদ, সমৃদ্ধি এবং নির্দেশিকা অর্জনের জন্য আল্লাহর কাছে ভিক্ষা, অনুরোধ, অনুনয় করতে পারি। যেমন আমরা জানি আমাদের ক্ষুধার্ত থেকে আল্লাহর কোন লাভ নেই কিন্তু তিনি চান আমরা যেন আরও বেশি শুদ্ধ, আরও দয়ালু, আরও সংযত হই, যাতে আমরা আমাদের রোজাদারদের কষ্ট অনুভব করতে পারি।

৩) রমজান হল কিছু ভাল অভ্যাস গ্রহণ করার এবং খারাপ অভ্যাস ত্যাগ করার সর্বোত্তম পর্যায়। এই রমজানে একে অপরের জন্য দুআ করতে ভুলবেন না। এটা ক্ষমার মাস। আসুন এর আশীর্বাদের পূর্ণ সদ্ব্যবহার করি এবং মানুষকে ক্ষমা করতে চেষ্টা করি। রমজান মুবারক।

৪) “পর্যায়ক্রমিক সাওম বা রোজা মনকে পরিষ্কার করতে এবং শরীর ও আত্মাকে শক্তিশালী করতে সাহায্য করে। সুতরাং সকলের উচিত এই দিনগুলোতে সাওম পালন করা। কারণ সাওম মানুষকে সকল প্রকার গুনাহ হতে মুক্ত রাখে।

৫) “কিছু ইবাদাত দিয়ে আত্মনিয়ন্ত্রণের অনুশীলন শুরু করুন; রোজা দিয়ে শুরু করুন। রমজান মাসে ফজরের নামাজের আজানের ধ্বনি দিয়ে সুখ আপনার দরজায় কড়া নাড়ুক এবং আপনার ঘর বরকত ও দোয়ায় ভরে উঠুক! রমজানের শুভেচ্ছা।

৬) তিনি আমাদের এক প্রভু। যিনি আকাশ সৃষ্টি করেছেন, যিনি প্রকৃতির নকশা করেছেন, যিনি পৃথিবীতে পবিত্রতা নিয়ে আসেন। সমস্ত ভাল উদাহরণ তাঁর জন্য। যিনি সবচেয়ে জ্ঞানী, সবচেয়ে দয়ালু এবং সবচেয়ে প্রেমময়! আপনাকে পবিত্র রমজানের শুভেচ্ছা..!

৭) নবী স; বলেছেন: “যে ব্যক্তি ঈমানের সাথে এবং আল্লাহর কাছে সওয়াবের আশায় কদরের রাতে নামাজের জন্য দাঁড়াবে, তার পূর্বের সমস্ত গুনাহ মাফ করে দেওয়া হবে। কদরের রাত হাজার মাসের চাইতে উত্তম।

৮) ফরমান-ই-মুস্তফা (সাঃ): রাসূল (সাঃ) ইরশাদ করেন, রমজান মাসের প্রথম রাতে আসমান এবং জমিনের সব দরওয়াজা খুলে দেয়া হয়। যা রমজান মাসের শেষ রাত্রি পর্যন্ত খোলা রাখা হয়। এই মাসে শয়তানকে বন্ধী করে রাখা হয়। তাই সকল মুসলমানের উচিত দিনটিকে পবিত্রতার সাথে পালন করা।

৯) কুরআন মাজীদ আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন, হে ঈমানদারগণ, তোমাদের উপর আমি রোজা ফারদ্ব করেছি যেভাবে করেছি তোমাদের পূর্ববর্তী লোকেদের উপর। যাতে তোমরা নেককার হতে পারো। সুতরাং রোজা মানুষকে নেককার বানায়। মানুষকে পরহেজগার হতে সাহায্য করে।(আলবাকরাহ)

১০) হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)  ইরশাদ করেন, রোজা মানে শুধু নিজেকে খানাপিনা থেকে দূরে রাখা নই বরং রোজা সব রকমের খারাপ ও গর্হিত কাজ থেকে দূরে রাখার নাম। এজন্য কেও যদি তোমাদের সাথে রোজার সময় অনর্থক কথাবার্তা বলে বেড়ায় তবে তাকে বলো! আমি রোজাদার।

রোজার মৌসুমে সকলের উচিত যাতে মন থেকে আল্লাহর জন্য রোজা রাখে।

আল্লাহ সকলকে রোজা রাখার, নামাজ পড়ার তাওফিক দিন। আমীন।

রমজানের উক্তি/বানী

রমজানের বানীঃ পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে আমরা নিয়ে এলাম মাহে রমজানের উক্তি। এছাড়াও আরও পাবেন রমজানের শুভেচ্ছা বার্তা, রমজানের মেসেজ, রমজানের ফেসবুক স্ট্যাটাস এবং রমজানের পিকচার।

১) রমজানের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছি কিন্তু আমাদের অনেকেই শেষবার কুরআন তোলার পর থেকে কুরআনে অনেক ধুলো জড়ো করেছে। যেহেতু রমজান দ্রুত এগিয়ে আসছে আমাদের অবশ্যই কুরআনের উপরের ধুলো উড়িয়ে দিতে হবে এবং কুরআনের সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক গড়ে তুলতে হবে।

২) এই রমজানকে আপনার জন্য সদসুযোগ মনে করুন। এই পৃথিবীর প্রতারণা থেকে মুক্ত হয়ে ইমান-এর মাধুর্যে লিপ্ত হও। কারণ রমজান মানুষকে পবিত্র করতে এসেছে।

৩) এই রমজানে প্রতিদিন ১ টাকা দান করুন, যদি সে সময়টা লাইলাতুল কদরে পড়ে, তাহলে আপনি ৮৪ বছর ধরে প্রতিদিন সদকা করেছেন মর্মে আপনার আমল নামায় যুক্ত হবে বলে হাদীসে উল্লেখিত আছে। তাই সকলের উচিত এই দিনে বেশি বেশি সদকা করা।

৪) এই রমজানে প্রতিদিন একত্রিত হয়ে ইবাদাত বন্দেগি করুন, আর যদি এটি লায়লাতুল কদরে পড়ে, তাহলে আপনি ৮৪ বছর ধরে প্রতিদিন ইবাদাত করেছেন মর্মে আপনার আমল নামায় লিপিবদ্ধ হয়ে যাবে। তাই সকলের উচিত এই দিনে বেশি বেশি ইবাদত বন্দেগি করা।

৫) এই পবিত্র রমজানে প্রতিদিন ৩ বার সূরা ইখলাস পড়ুন, অথবা লায়লাতুল কদরে পড়লে, আপনি ৮৪ বছর ধরে প্রতিদিন পুরো কুরআন পাঠ করেছেন মর্মে আপনার আমল নামায় লিপিবদ্ধ হয়ে যাবে। অতএব, সকলের উচিত এই মাসে বেশি বেশি কুরআন তেলাওয়াত করা।

৬) একজন সত্যিকারের মুসলমানের জন্য, রমজানের শেষটি “শেষ” নয় বরং জান্নাতের দিকে নিয়ে যাওয়া একটি নতুন যাত্রার সূচনা। রমজানের আগমন মূলত মানুষকে জাহান্নাম থেকে জান্নাতে নিয়ে যেতে। সুতরাং, সকলের উচিত যথাসাধ্য রোজা রাখা।

৭) হযরত মুহাম্মদ (সা.) বলেছেন: “যে ব্যক্তি অন্য রোজাদারকে ইফতার করাবে, সে রোজাদারের সমান সওয়াব পাবে, রোজাদারের সওয়াব থেকে কোন ঘাটতি হবে না।” হাদীসটি নিসাঈ এবং তিরমিজিতে বর্ণিত।

৮) রমজান৷ ইসলামি বারো মাসের মধ্যে সবচাইতে পবিত্র এবং বরকতময় মাসের অন্যতম মাস। এইদিনে সকলে রোজা রাখে এবং ইবাদাত বন্দেগি করে। অন্যান্য মাসের চেয়ে এই মাসের গুরুত্ব ইসলামি শরীয়তে বেশি হিসেবে জানা হয়। তাই আমাদের সকলের উচিত এই দিনটিকে গুরুত্বের সাথে পালন করা।

৯) রমজানের শেষ দিনগুলিতে, আল্লাহ আপনার গোপন প্রার্থনায় মনোযোগ দিন, আপনার গোপন অশ্রু মুছে দিন, আপনার গোপন ভয় মুছে দিন এবং আল্লাহ আপনাকে সেই অবস্থানে উঠিয়ে দিন যেখানে আপনি খুব পছন্দ করেন। আমীন।

১০) রমজানের আগে যারা আপনার সাথে অন্যায় করেছে তাদের সবাইকে ক্ষমা করার চেষ্টা করুন যাতে আপনি শুদ্ধ চিত্তে রমজান মাসে প্রবেশ করার দিকে মনোযোগ দিতে পারেন। ক্ষমা করা আল্লাহর গুণ। তাই আপনারও উচিত আল্লাহর গুণে গুণান্বিত হওয়া।

রমজানের পিকচার

পবিত্র মাহে রমজানের জন্য রমজানের শুভেচ্ছা পিক খুঁজতেছেন? আসছে রমজান মাস তাই রমজানের শুভেচ্ছা বার্তা, রমজানের শুভেচ্ছা বানী পাঠাতে পারেন আমাদের সাইট থেকে। আপনাদের জন্য ২০২২ সালের সেরা রমজানের পিকচার দেওয়া রয়েছে এখানে, তাই রমজানের পিকচার ডাউনলোড করে, আপনার প্রিয়জনকে রমজানের পিকচার/ছবি পাঠিয়ে শুভেচ্ছা জানাতে পারেন।

রমজানের শুভেচ্ছা পিকচার
রমজানের পিকচার ডাউনলোড
মাহে রমজানের শুভেচ্ছা পিকচার
মাহে রমজানের শুভেচ্ছা পিকচার
রমজানের পিক ২০২২
রমজানুল মোবারক পিকচার

শেষকথাঃ আজকের পোষ্টে রমজানের শুভেচ্ছা বার্তা, রমজানের এসএমএস, রমজানের স্ট্যাটাস, রমজানের উক্তি ও রমজানের পিকচার আপনাদের মাঝে শেয়ার করা হয়েছে। লেখাগুলো ও রমজানের পিকাচারগুলো ভালো লাগলে বন্ধু-বান্ধব প্রিয়জনদের কাছে রমজানের (রাজার) শুভেচ্ছা পিকচার পাঠাতে পারেন। ধন্যবাদ!

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button